পশ্চিমবঙ্গের প্রথম প্যালিনড্রোম পত্রিকা প্রকাশ হল মুর্শিদাবাদের সালারে

নিজস্ব সংবাদদাতা ; মুর্শিদাবাদ

গতকাল শুক্রবার ১২ ফেব্রুয়ারি মুর্শিদাবাদের সালারে প্রকাশিত হল পশ্চিমবঙ্গের তথা ভারতবর্ষের প্রথম বাংলা প্যালিনড্রোম পত্রিকা ‘নবভুবন’। সালার থানার ও.সি ইন্দ্রনীল মহান্ত মহাশয়ের হাত দিয়ে সম্পাদক প্রিন্স খন্দেকার ও সালারের কয়েকজন যুবকবৃন্দ এই পত্রিকাটি প্রকাশ করলেন।

‘প্যালিনড্রোম’ হলো এমন কিছু শব্দ, বাক্য বা সংখ্যা, যা ডানে বামে যেদিকেই পড়া হয়, তার উচ্চারণ ও অর্থ একই থাকে। যেমন- নয়ন, নবীন, নরেন, জবাব, রমাকান্ত কামার ইত্যাদি। প্রথম বাংলা ভাষায় প্যালিনড্রোম লিখেন ‘দাদাঠাকুর’ শরৎচন্দ্র পন্ডিত। এরপর বাংলাদেশের সাহিত্যিক ফরিদ উদ্দিন বাংলা সাহিত্যে প্রথম প্যালিনড্রোম কবিতার বই ‘কথা থাক’ রচনা করেন। তিনি প্যালিনড্রোমকে বাংলাদেশে দারুণ ভাবে প্রচার করেন। ধীরে ধীরে অনেকে প্যালিনড্রোম কবিতা-ছড়া-গল্প লিখতে থাকেন। তাঁর উদ্যোগে ‘নবপ্লাবন’ ও ‘নবযৌবন’ নামে দুটি প্যালিনড্রোম সংকলন গ্রন্থ প্রকাশ হয়। ‘নবপবন’ নামে একটা পত্রিকাও তিনি প্রকাশ করছেন।

বাংলাদেশে এর দারুণ চর্চা হলেও, পশ্চিমবঙ্গে এর চর্চা খুব একটা হয়নি। তাই পশ্চিমবঙ্গে প্যালিনড্রোম চর্চার সূচনা করতে সালারের তরুণ সম্পাদক প্রিন্স খন্দেকার ‘নবভুবন’ পত্রিকাটি আজ প্রকাশ করেন। এই পত্রিকাটি দুই বাংলার প্যালিনড্রোমিস্টদের লেখায় সমৃদ্ধ।

মজার বিষয় হচ্ছে পত্রিকার নাম ‘নবভুবন’, প্রকাশতারিখ ‘১২.০২.২০২১’, পৃষ্ঠা সংখ্যা ‘৪৪’, মূল্য ‘৩৩’ ইত্যাদি, এসবগুলোই প্যালিনড্রোম। ‘নবভুবন’ পত্রিকার হাত ধরে পশ্চিমবঙ্গে প্যালিনড্রোমের নতুন এক ইতিহাসের সূচনা হলো, এবিষয়ে কোনো সন্দেহ নেই।