আমতার রঞ্জবাড় গ্রামে ভর দুপুরে তৃণমূলের দু’টি পার্টি অফিসে ‘ভাঙচুর’, অভিযুক্ত বিজেপি

কল্যাণ অধিকারী, হাওড়া

গ্রামীণ হাওড়ার জয়পুর থানার রঞ্জবার গ্রামে দিনের বেলায় তৃণমূলের দুটি পার্টি অফিস ভাঙচুরের ঘটনা ঘটল। অভিযুক্ত বিজেপি। জয়পুর থানার পুলিশের একটি বাহিনী ঘটনাস্থলে টহল দিচ্ছে।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, সোমবার দুপুর দু’টো নাগাদ তৃণমূলের দু’টি পার্টি অফিস ভাঙচুরের ঘটনা ঘটে। খবর ছড়াতেই শাসক দলের কর্মী সমর্থকেরা রাতে ভিড় জমাতে থাকে। পরিস্থিতি যাতে আয়ত্তে থাকে সেই কারণে পুলিশের একটি টিম পার্টি অফিস এলাকায় ডিউটিতে রাখা হয়। তৃণমূল এই ঘটনায় বিজেপির কর্মী সমর্থকদের দিকে আঙুল তুলেছে। যদিও এলাকার বিজেপির সদস্যদের দাবি, গ্রামবাসীরা আমফান ঘূর্ণিঝড় ত্রাণ না পেয়েই তৃণমূল নেতাদের বাড়িতে যায়। সেখানে দেখতে না পেয়ে পার্টি অফিস ভাঙচুর করে।

বিষয়টি নিয়ে তৃণমূলের পক্ষ থেকে জয়পুর থানায় অভিযোগ জানানো হয়েছে। পুলিশ ঘটনাস্থলে রয়েছে। পার্টি অফিসের এলসিডি টিভি ভেঙে দেওয়া হয়েছে। কেবলের বক্স, ইলেক্ট্রিক সরঞ্জাম ভেঙে মেঝেতে পড়ে। সিলিং ফ্যান বাঁকিয়ে দেওয়া হয়েছে। সৌর আলোর ব্যাটারি রাখা বাক্স লাঠি দিয়ে বাঁকিয়ে দেওয়া হয়েছে। চেয়ার ভেঙে পাশের খালে ফেলে দিয়েছে। ঘটনার জেরে উত্তপ্ত এলাকা। রাতে পুলিশ পিকেট করা হয়েছে।

বিনলা অঞ্চল তৃণমূল কংগ্রেস সভাপতি মৃত্যুঞ্জয় কোলে জানান, “প্রায় ৪০-৫০ জন বিজেপি কর্মী লাঠি নিয়ে রঞ্জবাড় গ্রামে দুটি পার্টি অফিস ভাঙচুর করেছে। ২০১৯ সালের জুলাই মাসে একবার আক্রমণ করেছিল। এবার ১৭ ও ১৮ নং বুথে দুটি পার্টি অফিস অতর্কিত আক্রমণ করেছে। আমরা লিখিত অভিযোগ করেছি থানায়।

জয়পুর থানার ওসি তাপস কুমার নস্কর জানান, “রঞ্জবাড় এলাকায় একটা ঝামেলা হয়েছে। চেয়ার ভেঙে দিয়েছে। এলাকায় পুলিশি টহলদারি রাখা হয়েছে।”