বাংলা চলচ্চিত্র ‘ভটভটি’তে নতুন জুটির উপহার পরিচালক তথাগতর

অরিন্দম মজুমদার, সৌভিক মহাজন

তথাগত মুখার্জী বাংলা চলচ্চিত্র প্রেমী দর্শকদের কাছে কোনো নতুন নাম নয়। অভিনেতা থেকে পরিচালক দুটোতেই সব্যসাচী ” sweater “— সফল পরিচালক তথাগত । বয়সে নবীন কিন্তু চলচ্চিত্র মহলে ফ্যান্টাসি ও রিয়েলিটির এক অসাধারণ মিক্স আপ করে সাবলীল অথচ মৌলিক পরিচালক হিসেবে তথাগত মেলে ধরতে পেরেছে নিজেকে। নবাগত হলেও মৃনাল সেন ,সত্যজিত রায়ের যোগ্য উত্তরসূরি হিসেবে নিজেকে তুলে ধরতে পারবে নবীন পরিচালক এই আসা করা যায় । সত্যজিৎ , মৃনাল সেনের মতোই নতুনের সন্ধানে অগ্রজদের অনুসরণ করেছে তথাগত । প্রায় ১০০০০ হাজার অডিশনের মাধ্যমে তথাগত তুলে ধরতে চলেছে বাংলা চলচ্চিত্রের নতুন দুই জুটি রিশভ ও বিবৃতিকে । এই নবীন চলচিত্রে একদম নবাগত দুই জুটিকে উপহার দিতে চলেছে তারুণ্যের উচ্ছলতায় ভরপুর পরিচালক । নিজেও অভিনয় করছে এক বিতর্কিত চরিত্রে । এক পতিতার রাখেল হিসাবে । নতুন আঙ্গিকের ছবি ‘ভটভটি’ । যেমন ভালো লাগবে ছোটদের তেমনি বড়রাও খুঁজে পাবে তাদের অপূর্ণ স্বপ্নের না পাওয়ার স্মৃতি । পরিচালক তথাগত প্রিলাঞ্চিং প্রমোতে । হোটেল ‘রেডিসন’ দক্ষিণ কলকাতার এক অভিজাত হোটেলে গত ২৩ আগস্ট ”ভটভটি”” ঘিরে যেন চাঁদের হাট বসেছিল ।শুটিং এর লাউনচিং অনুষ্ঠান কে ছিল না! চলচ্চিত্র খ্যাত টিটো দা যার পোশাকি নাম দীপঙ্কর দে , প্রখ্যাত নৃত্য শিল্পী ও অভিনেত্রী মমতা শংকর , চার প্রবীণ অভিনেতা যাদের অভিনয় চলচ্চিত্র প্রেমী দর্শক মনে রাখে তাদের অভিনয় গুনে — খল চরিত্রে স্বনামধন্য তমাল রায় চৌধুরী , ‘নীল আকাশের নীচে ‘খ্যাত মনু মুখার্জি, নিমাই ঘোষ, জয়ন্ত মুখার্জী প্রমুখ । প্রবীণদের পাশাপাশি নবীন প্রজন্মের ভবিষ্যতের ভূত খ্যাত দেবলীনা দত্ত, পৌলামী, শেলী। “ভটভটি ” মূলত একটি ফ্যান্টাসি । ফ্যান্টাসির মধ্যে লুকিয়ে রয়েছে রিয়েলিটি । যে রিয়েলিটি আমি আপনি খুঁজে পাই প্রতিদিন কার জীবন যন্ত্রনায় ,বহমান জীবনে বেঁচে থাকার লড়াইয়ের চলমানতায়। চরিত্রে রূপকের আশ্রয় পরিচালক নিলেও ছত্রে ছত্রে সমাজের বৈপিরত্যের বিরুদ্ধে তীব্র দ্বেষ পরিচালক বিভিন্ন চরিত্রের মধ্যে দিয়ে ফুটিয়ে তুলবেন । পরিচালক তথাগত ও প্রযোজক শুভ , সৌম্য , প্রতীক লাউনচিং স্পীচে তারা আশা ব্যক্ত করেন । পরিচালক তথাগত সত্যি এক ঝুঁকি নিয়েছেন তার তারিফ না করে পারা যায় না! যেটা স্পেশালিটি তা হল অডিশন দিয়ে মুখ্য চরিত্র নির্বাচন করা । এই ঝুঁকি যে তথাগত দেখতে পারে ও প্রযোজকরাও তার প্রতি ভরসা রেখেছেন সেটাও যেমন চ্যালেঞ্জিং এবং ইন্টারেস্টিং ও বটে । ভটভটিরা আমাদের আশে পাশে ঘুরে বেড়ায় । তারা যেমন স্বপ্ন দেখে , স্বপ্ন দেখতে দেখতে কল্পলোকের অতলানতে । যে রাজপ্রাসাদের খোঁজ পায় , যে রাজপ্রাসাদে থাকে জলপরী ও জলপুত্র মের-ম্যান, তাঁদের প্রেম যে শুধুমাত্র কল্পলোকে নয় লৌকিক ও তা নিখুঁত ভাবে পরিচালক তথাগত ফুটিয়ে তুলে এক নতূন আঙ্গিকের সিনেমা আমদের উপহার দিতে চলেছে । আমরা দেখবো , সে আশা করা যেতেই পারে। প্রারম্ভিক যে সফলতার মধ্যে দিয়ে উন্মোচিত হল চলচ্চিত্র রূপায়ণ প্রত্যাশাকে ছাড়িয়ে যাবেই এই বিশ্বাস আমরা রাখি।