হাওড়া শহরের কোয়ার্টারে রাসেল ভাইপার, উদ্ধারে বন দফতর

কল্যাণ অধিকারী, হাওড়া : হাওড়া শহরের প্রান্তে কোয়ার্টারের ভিতর থেকে প্রায় ৩ ফুট লম্বা ভয়ংকর বিষধর ও বিরল প্রজাতির একটি ‘রাসেল ভাইপার’ সাপ। এটি ‘চন্দ্রবোড়া’ নামেও পরিচিত। এর এক ছোবলেই মৃত্যু হতে পারে বলে বন দফতর সূত্রে জানা গেছে।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, গোলমোহর এলাকার একটি কোয়ার্টারের ভিতর সাপ ঢুকেছে বলে এলাকাবাসীরা জানতে পারে। অনেক সময় ড্রেনের জলে হেলে জাতীয় সাপ চলে আসে। কিন্তু তা বলে কোয়ার্টারের ভিতর প্রবেশ করবে বিশ্বাস করতে পারেনি। প্রাথমিক ভাবে টর্চের আলো জ্বেলে ঘরের ভিতর খুঁজতেই চক্ষু চড়কগাছ। এ তো রাসেল ভাইপার সাপ। স্থানীয়রা এটিকে চন্দ্রবোড়া বলে থাকে।হাওড়া স্টেশন থেকে মাত্র দেড় কিমি দূরে এমন বিষধর সাপ ঢুকে পড়ায় খবর যায় বন দফতরে।

হাওড়া শহরের বন দফতরের আধিকারিক সমীর ব্যানার্জি জানান, আমাদের কাছে খবর আসতেই সাপ ধরবার যন্ত্রপাতি নিয়ে গোলমোহর এলাকার ওই কোয়ার্টারে পৌঁছাই। দেখা যায় ফ্রিজের নিচে গুটিয়ে রয়েছে। ফ্রিজের পিছনের জাল থেকে উপরে উঠছে। ফ্রিজ বের করে উদ্ধার করা হয়। পরে প্রাণী উদ্ধার কেন্দ্রে পাঠানো হয়েছে। এটি রাসেল ভাইপার সাপ। বিষ এদের মারাত্মক।

রাসেল ভাইপার মূলত চা বাগানে বেশি দেখা যায়। বিষধর সাপের মধ্যে এটি অন্যতম। বিষদাঁতের জন্য অনেক বেশি গভীর করে কামড়াতে পারে। বিষক্রিয়ায় রক্ত জমা বন্ধ হয়ে যায়। ফলে অত্যধিক রক্তক্ষরণে এবং দীর্ঘ যন্ত্রণার পর মৃত্য হতে পারে। জমির ঘাসযুক্ত উন্মুক্ত পরিবেশে এবং কিছুটা শুষ্ক পরিবেশে বাস করে। এরা নিশাচর। এদের খাদ্য ইঁদুর, ছোট পাখি, টিকটিকি ও ব্যাঙ। এরা কামড় দিয়ে ছেড়ে দেয়। প্রচণ্ড বিষের যন্ত্রণায় শিকার ছটফট করতে করতে মারা যায়।