লকডাউন উপেক্ষা করে রাস্তায় ও ব্যাঙ্কে মানুষ

রবীন্দ্রনাথ বর্মন ; দিনহাটা, ২০ এপ্রিল : লকডাউনে ৪ জনের বেশি জমায়েত নিষিদ্ধ হলেও কাচাবাজার, মুদিখানা, ব্যাঙ্ক, ওষুধ এবং গ্যাসের দোকানে ভিড় বাড়ছেই। ফলে সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখার যে নির্দেশ বারবার দেওয়া হচ্ছে তা লঙ্ঘিত হচ্ছে দিনহাটা ১নং ব্লকের অন্তর্গত মাতালহাট বাজার সহ ওই ব্লকের শহর ও গ্ৰামীণ এলাকায়। তাতে আবার আজ ২০ তারিখ অনেকেই রাস্তা ও বিভিন্ন দোকানে ভির করে, কেননা এই তারিখের পর কিছুটা লকডাউনে ছাড় কথা সকলের জানা।

অবস্থা এমন মাতালহাট বাজার সংলগ্ন ব্যাঙ্ক এর কর্মীরা নির্দিষ্ট দূরত্ব বজায় রাখতে অনুরোধ করছে গ্ৰাহকদের। সকাল থেকেই দুচাকা বা স্কুটির পিছনে গ্যাসের সিলিন্ডার, সামনে আনাজ বা মুদিখানার ব্যাগ। সোমবার এই ব্লকের প্রাথমিক স্কুল ও হাই স্কুলে চাল ও আলুর দেওয়ার দ্বিতীয় দফার দিন ছিল। ফলে মাতালহাট উচ্চ বিদ্যালয়ে অবিভাবকরা না এসে স্কুল পড়ুয়াদের ভির জমে। পরে অবশ্য ওই হাই স্কুলের প্রধান শিক্ষক ছাত্রদের বাড়িতে ফিরে যেতে বলেন। তাদের বদলে অবিভাবকদের আসতে বলেন। আতঙ্কের এই ছবিটা চোখে পড়েছে গ্ৰাম এলাকা থেকে শহর দিনহাটাতে। প্রাথমিকভাবে ১৪ এপ্রিল পর্যন্ত লকডাউনের প্রস্তুতি থাকলেও হটাৎই মঙ্গলবার রাতে তা ৩ মে পর্যন্ত এক্সটেন্ডেড হওয়ায় কার্যত দিশেহারা অবস্থা মানুষজনের। বিশেষত দিন আনা দিন খাওয়া মানুষজনের। এমন অবস্থায় শুধু জীবনধারণের জন্য বাধ্য হয়ে যে যার সাধ্যমত খাদ্য সামগ্রী এবং অন্যান্য প্রয়োজনীয় জিনিস জোগাড়ের চেষ্টা করেছেন সাধারণ মানুষ। আর তাই করতে গিয়ে সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখার সরকারি নির্দেশ লঙ্ঘিত হয়েছে সর্বত্র।