জমি বিবাদ ! ধারালো অস্ত্রের আঘাতে জখম এক সিভিক ভোলেন্টিয়ার সহ এক পুলিশ অফিসার

হাবিবুর রহমান , হরিশ্চন্দ্রপুর : জমি নিয়ে বিবাদের ঘটনায় অভিযুক্তদের গ্রেপ্তার করতে গিয়ে অভিযুক্তদের ধারালো অস্ত্রের আঘাতে জখম হলেন এক সিভিক ভল্যান্টিয়ার সহ এক পুলিশ অফিসার।
আক্রান্তরা পুলিশ কর্মীরা চিকিৎসাধীন মালদা মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালে। এই ঘটনায় দুই অভিযুক্তকে গ্রেফতার করে পুলিশ।মঙ্গলবার দুপুরে ঘটনাটি ঘটেছে, মালদাহের হরিশ্চন্দ্রপুর থানার অন্তর্গত দৌলতনগর পঞ্চায়েতের দৌলতনগর এলাকায়।ফলে এই ঘটনার জেরে ওই এলাকায় ব্যাপক চাঞ্চল্য ছড়িয়ে পড়ে।
পুলিশ সূত্রে জানা গেছে , হরিশ্চন্দ্রপুর থানার অন্তর্গত দৌলতনগর এলাকায় জমি সংক্রান্ত বিবাদকে কেন্দ্র করে দলবদ্ধ হয়ে এক ব্যাক্তির বাড়িতে চড়াও হয় অভিযুক্তরা। বাড়িতে চড়াও হয়ে দুই মহিলা এবং এক যুবককে ধারালো অস্ত্রদিয়ে এলোপাথাড়ি ভাবে কুপিয়ে খুন করার চেষ্টার অভিযোগ
উঠে অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে।এমনকি অভিযুক্তদের ধারালো অস্ত্রের আঘাতে গুরুতর জখম ওই দুই মহিলা সহ যুবক আশঙ্কাজনক অবস্থায় চিকিৎসাধীন মালদা মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালে।এই ঘটনায় বুধয়া মন্ডল,মান্নু মন্ডল এবং বেচন মন্ডল সহ 12 জনের বিরুদ্ধে হরিশ্চন্দ্রপুর থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন আক্রান্তদের পরিবার। ফলে মঙ্গলবার দুপুরে দৌলতনগর গ্রামের বাসিন্দা ওই অভিযুক্তদের গ্রেপ্তার করতে যায় হরিশ্চন্দ্রপুর থানার পুলিশ।অভিযুক্তদের গ্রেপ্তার করতে গেলে পুলিশের উপর ধারালো অস্ত্র নিয়ে হামলা চালায় অভিযুক্তরা বলে অভিযোগ পুলিশের।

এবিষয়ে চাঁচল মহকুমার এসডিপিও স্বজল কান্তি বিশ্বাস জানিয়েছেন,অভিযুক্তদের ধারালো অস্ত্রের আঘাতে গুরুতর জখম হন এ এস আই নটোবর দাস ও সুব্রত মন্ডল নামে এক সিভিক ভলেন্টিয়ার।ঘটনায় দুই অভিযুক্তকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

অন্যদিকে পুলিশের উপর হামলার ঘটনায় তীব্র নিন্দা জানিয়ে অভিযুক্তদের কঠোর শাস্তির দাবি জানিয়েছেন,দৌলতনগর গ্রাম পঞ্চায়েত প্রধান নজিবুর রহমান।
পুলিশের উপর হামলার ঘটনায় তীব্র নিন্দা জানিয়ে অভিযুক্তদের কঠোর শাস্তির দাবি জানিয়েছেন হরিশ্চন্দ্রপুর বিধানসভার বিধায়ক মোস্তাক আলম ও প্রাক্তন বিধায়ক তজমুল হোসেন