ব্যবসায়ী বন্ধুর সঙ্গে দামোদরে নেমে তলিয়ে গেল যুবক, উদ্ধারে নামলো ডিজাস্টার ম্যানেজমেন্ট টিম

কল্যাণ অধিকারী, হাওড়া

ব্যবসায়ী বন্ধুর সঙ্গে বিসর্জন দেখতে এসে দামোদরে তলিয়ে গেল ঝাড়খন্ড’র যুবক। প্রায় ২৪ ঘন্টা ধরে খোঁজ চালিয়েও মিলল না দেহ। পাড়ে বসে ঠায় অপেক্ষায় পরিবার-পরিজন। ঘটনাটি ঘটেছে হাওড়া জয়পুর থানার মৈনান এলাকায়। নিখোঁজ যুবকের নাম শিব শংকর দাস ৩৫।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, রবিবার দুপুর নাগাদ বছর চল্লিশের যুবক টিনা, অংশুমান এবং শিব শংকর তিন যুবক নিম্ন দামোদরের পাড়ে বসে মদ্যপান করছিল। তারপর স্নান সারতে নদীতে নামে। শান্ত দামোদরে সাঁতার দিয়ে ওপাড়ে যাবার চেষ্টা করে। দু’জন কোনক্রমে পৌঁছে গেলেও শিব শংকর দাস পৌঁছাতে পারেনি। তলিয়ে যায়। পারে বসে টিনা ও অংশুমান অপেক্ষা করতে থাকে। বহু সময় পরেও দেহ না খুঁজে পেয়ে স্থানীয়দের জানায়। খবর যায় জয়পুর থানায়। রাতের দিকে ডুবুরি নামিয়ে বেশ কিছুক্ষণ তল্লাশি চালানো হলেও মেলেনি দেহ। রাতেই নিখোঁজের পরিবারের লোকজন ঘটনাস্থলে এসে পৌঁছায়। সোমবার সকাল থেকে তল্লাশি চালানো হয়। পশ্চিমবঙ্গ সরকারের বিশেষ প্রশিক্ষণ প্রাপ্ত একটি দল তল্লাশি চালায়।

পরিবার সূত্রে জানা গেছে, ঝাড়খণ্ড’র বাসিন্দা শিব শংকর পরিবার নিয়ে আন্দুল এলাকায় থাকে। বাড়িতে রয়েছে স্ত্রী ও সাত বছরের মেয়ে। হার্ডওয়্যারের কারবার রয়েছে। রবিবার বেলা ১২টা নাগাদ দুই বন্ধুর সঙ্গে কালী পুজোর বিসর্জন দেখতে রসপুর এসেছিল। তারপর আর কিছু জানা যায় নি। পরে ফোন করে আমাদের বিষয়টি জানানো হয়। সঙ্গে সঙ্গে আমরা এলাকায় আসি। তল্লাশি শুরু হলেও মেলেনি দেহ। ঘটনার বিষয় জানানো হয় জয়পুর থানায়। ডুবুরি আসলেও মেলেনি দেহ। টিনা নামে যুবকটির আত্মীয়র বাড়ি এলাকায় হয়েছিল কালী পুজো। রবিবার ছিল বিসর্জন। ঘটনার জেরে শিব শংকরের স্ত্রী বারেবারে মূর্ছা যাচ্ছে। স্ত্রী জানান, হার্ডওয়ারের কারবার ছিল। তিনজন ছিল পার্টনার। টিনা, দীপাংশু এবং শিব শংকর। টিনার সঙ্গে এসেছিল। ঘটনার পর দীপাংশু কে জানানোঢ় চেষ্টা করা হয়। কিন্তু লাগেওনি ফোন। আর ফোনও করেনি। এক বছর ধরে কারবার লশে চলছিল। কিভাবে কি হয়ে গেল বুঝি না। আমার স্বামীকে ফিরে পেতে চাই। পাশপাশি ঘটনার তদন্ত করে দেখা হোক।

জয়পুর থানার ওসি তাপস কুমার নস্কর জানান, আন্দুল থেকে তিনজন বেড়াতে এসেছিল। স্নান করতে নেমেছিল। তলিয়ে যায়। ডিজাস্টার ম্যানেজমেন্ট বিভাগ খোঁজাখুঁজি করা হচ্ছে।