বাংলা সিরিয়াল এবং সিনে-জগতের বর্তমান পরিচালক সায়ন দাসগুপ্ত

    ছোটবেলায় পাড়ার মাঠে ক্রিকেট খেলা এবং তারপর থিয়েটার করা । পরবর্তীকালে ইঞ্জিনিয়ারিং পড়ার জন্য উড়িষ্যা পাড়ি দেওয়া । ২০০৯ সালে  ” থ্রি ইডিয়েট “ সিনেমা দেখার পর জীবনের চিন্তা ভাবনা পাল্টে যায় অর্থাৎ নতুন কিছু করার ভাবনায়। তারপর বাংলা সিরিয়ালে অবজার্ভার হিসেবে কাজ শুরু করা । তারপর বাংলা মেগা – সিরিয়ালে প্রথম পরিচালনা ” বিবি চৌধুরানি “ দিয়ে হাতে খড়ি । তখন থেকে একটার পর একটা ছবি অথবা সিনেমা এবং তার কঠোর পরিশ্রম শুধুমাত্র দর্শকের জন্য । সেই পরিশ্রমের উত্তর খুঁজতে সংবাদ টুডের সাব এডিটর উজ্জ্বল সরকার ও আয়ুষ রায়ের মুখোমুখি পরিচালক সায়ন দাসগুপ্ত ।

প্রঃ আপনার জার্নি কি ভাবে শুরু ?

উঃ আমি ইঞ্জিনিয়ারিং পড়তাম উড়িষ্যার একটি কলেজে। উচ্চমাধ্যমিক পাশ করার পর আমি উড়িষ্যায় চলে যাই ইঞ্জিনিয়ারিং পড়তে। তারপর একটি ছবি রিলিজ করে ২০০৯ সালের ডিসেম্বরে, আমি ৬ সেমিস্টার পরীক্ষা দিয়ে ফেরার সময় ছবিটা দেখা। ছবিটার নাম “থ্রি ইডিয়েট’স”। ছবিটা দেখার পর আমার মনে হয়, আমার আর ইঞ্জিনিয়ারিং পড়া উচিত না।আমার অন্য কিছু করা উচিত জীবনে। গল্প বলার দিকে সবসময়ই একটা ইচ্ছে ছিল। সেখান থেকেই চলে আসি খোঁজ করতে করতে। তারপর সিরিয়ালের অবসার্ভার হয়ে জয়েন করি ‛সূর্বর্ণলতা’ সেই সিরিয়ালটার নাম। তারপরে আস্তে আস্তে সেকেন্ড এডি তারপর থার্ড এডি হয়ে, প্রথম যে সিরিয়ালটা পরিচালনা করি ‛বিবি চৌধুরানী’, তারপর ‛তুমি আসবে বলে’, ‛বধূবরণ’, ‛গোপাল ভাঁড়’, ‛জয় কালী কলকাত্তাওয়ালী’, এছাড়াও আরও অনেকগুলো সিরিয়াল করেছি।

প্রঃ ২০১২ সালে ১০০ % লাভ ফিল্মে জীতের সাথে আপনি কাজ করেছেন, কাজের অভিজ্ঞতা কেমন ছিল?

উঃ ২০১২ সালে আমি হান্ড্রেড পার্সেন্ট লাভে  কাজ করেছিলাম জিৎ দার সাথে। ২০১৫ সালের ‛সংসার সুখের হয় রমনীর গুণে’ ওটাতে শুট করেছিলাম। অত্যন্ত ভদ্র এবং কাজের প্রতি তার যথেষ্ট নিষ্ঠা রয়েছে। কোয়েলের সাথে সেই সময় কাজ করার সৌভাগ্য হয়, সেও খুব প‍্যাসনেট এবং কাজের প্রতি ভীষণভাবে ডেডিকেটেড।

প্রঃ সোহম এবং হিরণ, এই দুই অভিনেতার সাথে কখনো কাজ করেছেন কি ?

উঃ সোহম আর হিরণের সাথে কোনদিন কাজ করিনি। তবে সোহমের সাথে কাজ করা আমার ইচ্ছে আছে। মিমি ও সোহমের আমি একটা ভূতের ছবি দেখেছিলাম, ‛গল্প হলেও সত্যি’। আমার বেশ ভাল লেগেছে।

প্রঃ অভিনেতা ইয়াশ এর সাথে কাজ করার ইচ্ছে …

উঃ ইয়াশ এর সাথে কাজ করার ইচ্ছে বলতে ‛বোঝে না সে বোঝে না’। তবে ইয়াশের সাথে কাজ করার ইচ্ছা আছে, ভালো অভিনেতা, দেখতে সুন্দর।

প্রঃ কোনদিন মিঠুন চক্রবর্তীর সাথে কাজ করেছেন ?

উঃ মিঠুন চক্রবর্তীর সাথে কোনদিন কাজ করিনি। তবে বুদ্ধদেব দাশগুপ্তর একটি ছবিতে কাজ করেছেন, সেই ছবিটার নাম হচ্ছে ‛কালপুরুষ’। সেই ছবিতে মিঠুন চক্রবর্তী, সামিরা রেড্ডি এবং রাহুল বোস ছিল, সেই ছবিতে আমি অবজার্ভার হিসেবে কাজ করতাম। আমি তখনই মিঠুন চক্রবর্তীকে কাছ থেকে দেখেছিলাম সেই ছবিটাতে, উনি একটা রোলে অভিনয় করেছিলেন। মিঠুন চক্রবর্তী খুবই ভালো একজন অভিনেতা, তার অনবদ্য অভিনয় এবং তারপরেও ওনার বেশ কিছু কাজ দেখে আমি মুকধ। আমি খুব নিজেকে ভাগ্যবান মনে করব যদি আগামী দিনে ওনার সাথে কাজ করতে পারি।

প্রঃ  রঞ্জিত মল্লিকের সাথে কাজ করবেন?

উঃ  সত্যজিৎ রায়ের অভিনেতা, ভীষণ ভালো একজন সুবিখ্যাত পুরোনো অভিনেতা। অবশ্যই কাজ করতে পারলে খুব খুশি হব।

প্রঃ বুম্বাদার সাথে কাজের সুযোগ এলে আপনি কি করবেন ?

উঃ অবশ্যই করবো। খুব ভালো অভিনেতা। ঋতুপর্ণ ঘোষ কাজ করেছেন ওনার সঙ্গে। উনি নিজে অনেক ভালো ভালো কাজ করেছেন। অবশ্যই কাজ করবো সুযোগ এলে। আমার যে ওয়েব সিরিজটার কথা বলেছিলাম রবীন্দ্রনাথের, সেই ওয়েব সিরিজে একটা কাজ করার কথা আছে ওনার, দেখা যাক ওটা কতটা এগোতে পারে।
 

প্রঃ ফিল্ম জগতে আসার আগে আপনি কি করতেন ?

উঃ ফিল্ম দুনিয়ায় আসার আগে বাড়ীতে বসে কবীতা লিখতাম। পাশের মাঠে ক্রিকেট খেলতাম আর থিয়েটার করতাম । কৌশিক সেনের সঙ্গে থিয়েটার করেছি ‛স্বপ্ন সন্ধানে’।

প্রঃ স্টার জলসা, জি বাংলা, কালার্স বাংলায ও সান বাংলায় আপনি কি কি কাজ করেছেন ?

উঃ আমি স্টার জলসায় কাজ করেছি ‛সংসার সুখের হয় রমনীর গুনে’, ‛তুমি আসবে বলে’, ‛সব চরিত্র কাল্পনিক’, ‛জয় কালী কলকাতা ওয়ালী’, ‛আজ আড়ি কাল ভাব’, ‛বধুবরণ’, ‛গোপাল ভার’, আর জি বাংলায় কাজ করেছে ‛ভানুমতির খেল’, ‛ত্রিনয়নী’, ‛বিবি চৌধুরানি’, ‛আমার দূর্গা’। কালার্স বাংলায় কাজ করেছি ‛শেষ থেকে শুরু’, ‛শাহানারা’, ‛তুমি এলে তাই’ এবং সান বাংলায় ‛আশালতা’।

IMG-20190611-WA0002

প্ৰঃ  আপনার জীবনের বেস্ট কাজ? আগামী দিনের কি চিন্তাভাবনা ?

উঃ  আমার বেস্ট কাজ বলতে ‛বাইনোকুলারস’ – সিলভার ফিল্ম IFP16, ‛ইউকুলে’ – ফিল্ম IFP17, ‛কালী পেলি রাইড’ – ব্রোঞ্জ ফিল্ম IFP18, ‛কিডন্যাপ’ – ফিল্ম স্ট্রিমিং ইন আড্ডাটাইমস, ‛সৌলমেট’ – ফিল্ম স্ট্রিমিং ইন আড্ডাটাইমস, ‛মিকি এন মিমি’ – ফিল্ম স্ট্রিমিং ইন আড্ডাটাইমস এছাড়াও আরও কিছু ফিল্মস আর সিরিয়ালস আছে। আগামী দিনে একটি ওয়েব সিরিজ আসছে, যেটা জী ফাইভে আসছে, সেটা একটি হিন্দি ওয়েব সিরিজ। সেটা একটা সময়কে ধরে হবে, সেই সময়ের এক যুগপুরুষকে নিয়ে হবে, সেটা কবিগুরু রবীন্দ্রনাথকে নিয়ে হবে। অনেক চমক আছে সেই সিরিজে যিনি রবীন্দ্রনাথের ভূমিকায় থাকবেন, সেটা এখন বলা যাবেনা। দর্শকের কাছে ওটা একটা চমক হবে, সেটা ভারতীয় ফিল্ম দুনিয়ায় একটা অনবদ্য পাওয়া হবে। দেখা যাক ওটা আগামী দিনে কতো দূর কি হয়, সেই ওয়েব সিরিজের কাজ এখন চলছে। এছাড়াও বেশ কিছু এক্সপেরিমেন্টাল কাজের কথা চলছে।

IMG-20190611-WA0004

প্রঃ ভবিষ্যতে কোন কোন অভিনেতার সাথে কাজ করার ইচ্ছে রয়েছে ?

উঃ আমার খুব ইচ্ছে, অমিতাভ বচ্চনের সঙ্গে কাজ করার। আর রণবীর কাপুরের সঙ্গে। টলিউডে আমার ভীষণ ইচ্ছে রয়েছে, রাজেশ শর্মার সাথে কাজ করার।

প্রঃ ঐতিহাসিক ঘটনার উপর বা কোন রিসার্চ মূলক কাজ শুরু করেছেন কি?

উঃ হ্যাঁ, আমাদের জি ফাইভে একটা ওয়েব সিরিজ হওয়ার কথা হচ্ছে, সেটা দুটো অফসন নিয়ে হচ্ছিলো, একটা হচ্ছে ‛গুমনামী বাবা’ যেটা সুভাষ বোসকে নিয়ে, আর এখন একটা কাজ হচ্ছে, রবীন্দ্রনাথকে নিয়ে। সুনীল গঙ্গোপাধ্যায়ের লেখার ওপড়ে নির্ভর করে।

প্রঃ একজন পরিচালক হিসেবে আপনার প্রিয় পরিচালক কে ?

উঃ আমার ভীষণ প্রিয় পরিচালক অনুরাগ কাশ্যপ ।

প্রঃ ভবিষ্যতে আর কি কাজ করার ইচ্ছে রয়েছে ?

উঃ ভবিষ্যতে, এখন ওয়েবের দুনিয়া। ওয়েব সিরিজ যত ভাল ভাল করা যায়। আমার মনে হয়, বাংলা ছবির এখন একটা খুব খারাপ সময় চলছে, আর্থিক দিক দিয়ে।

প্রঃ ভবিষ্যতে নতুন নতুন অভিনেতাদের সাথে কাজ করার ইচ্ছে আছে কি ?

উঃ ইয়ং জেনারেশন বলতে, এই মুহূর্তে আমার দেবের সাথে কাজ করার ইচ্ছে রয়েছে। আমার মনে হয় দেব খুব ভালো অভিনয় করতে পারে। সব্যসাচী চক্রবর্তীর দুই ছেলের সাথে কাজ করার ইচ্ছে রয়েছে। ত্রিধা আমাদের এখানে খুব ভালো কাজ করছে, ওর সাথে কাজ করার ইচ্ছে আছে। আরও যারা নতুন আসবে। ঋত্বিক চক্রবর্তীর সঙ্গে কাজ করার খুব ইচ্ছে।

প্রঃ তুমি আসবে বলে সিরিয়ালের রাহুল এবং সন্দীপ্তা সেনের সঙ্গে কাজ করে আপনার কেমন লেগেছে ?

উঃ রাহুলের সঙ্গে কাজ করার আমার খুব ভাল অভিজ্ঞতা। ওনার সঙ্গে একটা শর্ট ফিল্মও করেছি। ২০১৬ সালে যে শর্ট ফিল্মটা ‛ইন্ডিয়া ফিল্ম প্রোজেক্ট’ বলে একটা এশিয়ার সব থেকে বড় ফিল্ম মেকিং কমপিটিশন, সেখানে সিলভার ফিল্ম হয়। দ্বিতীয় ফিল্ম হয় সেটা এবং সেখানে রাহুল দা অভিনয় করেছিল। রাহুল দার সঙ্গে আমার খুব ভাল সম্পর্ক। বাড়ির খুব সামনেই থাকেন, টালীগঞ্জে আমি সেখানে থাকি। সন্দীপ্তাও খুব ভালো অভিনেত্রী, দু-তিনটে সিরিয়ালে লিড করেছে, ওর সাথে তখনই আমি কাজ করেছিলাম এবং ‛টাপুর টুপুরেও’ কাজ করেছিলাম। ভাল বন্ধুত্ব ছিল।

প্রঃ   অভিনেতা প্রদীপ খাঁড়ার অভিনয় কেমন লাগে?

উঃ   প্রদীপ দা কে আমি বহু দিন ধরে চিনি। ওনার সাথে আমি কাজ করছি অনেক দিন ধরে, আমি তখন এসিস্টেন্ট ডিরেক্টর ছিলাম। ‛এক মুঠো আসা’ বলে একটি সিরিয়ালে প্রথম দেখা হয়। অত‍্যন্ত ভালো অভিনেতা। কয়েকদিন আগে ‛ত্রিনয়নিতে’ কাজ করলাম, তার আগে ‛জয় কালিতে’ কাজ করেছি। উনি থিয়েটারে ভালো কাজ করছেন আর সিরিয়ালেও, শুভেচ্ছা রইলো ওনার জন্য।