ইতি মেঘবালিকা

আয়ুষ রায়:

      আজ অনেকদিন পর আবার কলকাতায় ফিরলাম। কতগুলো বছর কেটে গেল কলকাতাকে আর তোমাকে না দেখেই অনুরাগ। শুধু তোমার জন্যই কলকাতার নামটার সাথে আমার জীবনের অনেক সুন্দর স্মৃতি জড়িয়ে আছে। এইতো সেই কলকাতা যেখানে আমার ভালোবাসার মানুষটা থাকে, যে আমাকে একসময় নিজের প্রাণের চেয়েও বেশি ভালোবেসেছিল। কিন্তু এখন সে সবই অতীত। অনুরাগ তুমি কেমন আছো, জানতে বড়োই ইচ্ছে করে। তুমি কি এখনো আমাকে মনে রেখেছো, তুমি কি আগের মতোই আমাকে এখনো ভালোবাসো, না কি আমাদের সব স্মৃতির মুহূর্তগুলো ভুলে গেছো। সব স্মৃতি পেছনে ফেলে রেখে নিজের জীবনে এগিয়ে গেছো। এখনো কি আমার কোন অস্তিত্ব আছে তোমার জীবনে, জানতে খুব ইচ্ছে করে। কলকাতা নামটা শুনলে সেই দিনের কথা গুলো মনে পড়ে যায় বার বার, যেই দিন তুমি আমায় ভালোবেসেছিলে। সেই দিনটা আমি আজও ভুলতে পারিনি যেদিন আমাদের প্রথম দেখা হয়েছিল। কম সময়ের মধ্যেই তুমি আমার খুব কাছের বন্ধু হয়ে উঠেছিলে, তুমিই তো একমাত্র বন্ধু ছিলে যাকে আমি প্রাণ খুলে মনের কথা গুলো জানাতাম।

      একটা সময় ছিল যখন আমি একটা সম্পর্ক থেকে বেরিয়ে আসছিলাম, বিষণ্নতায় ভুগছিলাম, মনের কষ্টে কাটতো সারাক্ষণ, তখন তুমিই তো একমাত্র বন্ধু ছিলে যে আমার পাশে থেকে আমার মন ভালো করার চেষ্টা করতে। আমাকে খুঁচিয়ে জিজ্ঞেস করতে যে আমি ভালো আছি কিনা, আমাকে খুঁচিয়ে আমার ব্যক্তিগত ব্যাপার জেনে সেটা সমাধান করার চেষ্টা করতে। আমি অনেক সময় হয়তো বিরক্ত বোধ করতাম তোমার ওপরে ওই সব কারণে, অনেকসময় বলেও ফেলতাম ডিসটার্ব করো না, কিন্তু তুমি কখনোই রাগ করতে না উল্টে আমাকে ভালো রাখার আপ্রাণ চেষ্টা চালিয়ে যেতে। আমি এতটাই বোকা ছিলাম যে তোমার আমার প্রতি ভালোবাসাটাও বুঝতে পারতাম না। তুমি আমার মন ভালো করে দিতে, সব সময় আমায় হাসি খুশি দেখতে চাইতে। তুমিযে আমায় ভালোবেসে ফেলেছিলে বার বার ইঙ্গিত করতে আমি বুঝতে পেরেও পারতাম না। আমি হয়তো তখন নতুন কোন রিলেশনে ঢুকতে চাইছিলাম না। তোমাকে ভালো লাগতো তাও মুখফুটে বলতে পারতাম না কেন জানি না হয়তো লজ্জ্বা পেতাম। আমি সব সময় চাইতাম তুমি আমায় বলো। তবে তুমি যেইদিন সত্যি বললে আমাকে ভালোবাসো আমার খুব ভালো লেগেছিল, কিন্তু তাও কেন জানিনা আমি তোমায় কিছুই বললাম না। তুমি বার বার আমায় পরোক্ষভাবে বুঝিয়ে দিতে যে তুমি আমায় কতটা ভালোবাসো।

      সেই দিনগুলোর কথা এখনও মনে পড়ে যায়, যেই দিন ফুচকা খেতে খেতে আমার ঝাল লেগে চোখে থেকে জল বেরিয়ে এসেছিল, তুমি আমার ঝাল কাটাতে কাটাতে আমার চোখে জল দেখে নিজেই কেঁদে ফেলেছিলে। একদিন গরমকালে খুব গরমে আমাকে বেড়াতে বারণ করেছিলে তাও আমি তোমার কথা না শুনে কাজে বেরিয়েছিলাম, রাস্তায় হটাৎ সান স্টোকের মতন হয়, সেটা জানতে পেরে তুমি আমার ওপরে যে রাগ করেছিলে সেটা সামলাতে অনেক সময় লেগেছিল। এতো কম সময়ের মধ্যে তুমি আমাকে এতটা ভালোবেসে ফেলবে ভাবতে পারিনি। কেন যে তোমাকে সেই দিন বলতে পারিনি আমি ভালোবাসি তোমাকেই শুধু ভালোবাসি। আমি এতই মূর্খ ছিলাম যে তোমার মতো ভালোবাসার মানুষকে ছেড়ে, শুধুই সেরা ব্যক্তি ও সেরা ভালোবাসার খোঁজে ছুটেবেড়ালাম। এটা ভাবলাম না আমার ভালোবাসার মানুষটা আমার কাছেই আছে। নিজের জীবনটাকেই নষ্ট করে ফেললাম। একের পর এক রিলেশনে জড়িয়েছি সেরা ভালোবাসার ব্যক্তিকে পাবার আশায়, কিন্তু এটা ভাবিনি কেউই সেরা হয়না। কারণ সত্যি ভালোবাসার মানুষ একজনই হয়। মাঝে মাঝে মনে হয় সেই দিনগুলো যদি আবার ফিরে পেতাম তো কতো ভালো হতো। তোমায় আবার নতুন করে ভালোবাসতাম, তোমায় আঁকড়ে ধরতাম, তোমায় কখনও কাছ ছাড়া করতাম না, কখনও তোমাকে চোখের আড়ালে যেতেই দিতাম না। জানি আজ হয়তো অনেক দেরি হয়ে গেছে। এজীবনে আমাদের ভালোবাসা হয়তো সম্পূর্ণ হল না, কিন্তু আমার স্মৃতিতে এই ভালোবাসা অমর হয়ে থাকবে। মনের কোনায় একটা ইচ্ছে থেকেই গেছে, কলকাতায় আসার পর তোমায় যদি একবার দেখতে পেতাম, তুমি কেমন আছো যদি জানতে পারতাম। তুমি কি বিয়ে করেছো?  আমাকে কি একদমই ভুলে গেছো অনুরাগ। মাঝে মাঝে মনে হয় কেন যে সেই দিন তোমায় ‛আই লোভ ইউ টু’ বললাম না, যেই দিন তুমি আমায় বলেছিলে ‛আমি তোমায় ভালোবাসি’। তাহলে হয়তো আমাদের জীবটাই আলাদা হতো। ভালো থেকো অনুরাগ।