বিজেপি যুব মোর্চার নবান্ন অভিযান

নিজস্ব সংবাদদাতা
কলকাতা: বিজেপির যুব মোর্চার ডাকে বৃহস্পতিবার নবান্ন অভিযান কে কেন্দ্র করে কলকাতাসহ হাওড়ায় ধুমধুমার কাণ্ড ঘটেছে বলে অভিযোগ করেছে বিজেপি নেতৃত্ব। পুলিশ লাঠিচার্জ করায় আহত হয়েছে বিজেপির কেন্দ্রীয় পর্যবেক্ষক অরবিন্দ মেনন সহ বেশকিছু বিজেপি কর্মী। এদিন বিজেপি কর্মীদের ছত্রভঙ্গ করতে পুলিশ কোথাও লাঠিচার্জ কোথাও জলকামান ব্যবহার করেছে। এদিন রাজ্য বিজেপির সদর দপ্তর থেকে রাজ্য বিজেপি সভাপতি দিলীপ ঘোষের নেতৃত্বে এক বিশাল মিছিল হাওড়া ব্রিজের দিকে রওনা হলে ব্রীজে ওঠার মুখেই মিছিলটিকে আটকায় পুলিশ। শুরু হয় পুলিশের সঙ্গে তর্কাতর্কি। অভিযোগ ওঠে সেই সময় পুলিশ বিনা প্ররোচনায় লাঠিচার্জ করায় ব্রিজের সামনে পুলিশের লাঠির ঘায়ে বেশকিছু বিজেপি কর্মী আহত হয়েছে বলে দিলীপ ঘোষ অভিযোগ করেছেন। শুধু লাঠিচার্জ নয় তার অভিযোগ কর্মীদের ছত্রভঙ্গ করতে পুলিশ কাঁদানে গ্যাস ছুঁড়েছে। এর মধ্যেই বিজেপি কর্মীরা ব্যারিকেড ভেঙে এগিয়ে যাবার চেষ্টা করলে সেই সময় পুলিশ জলকামান ব্যবহার করেছে। বেশ কয়েক ঘন্টা হাওড়া ব্রিজের পরিস্থিতি অশান্ত ছিল। এদিন বিভিন্ন জায়গায় বিক্ষিপ্তভাবে বিজেপি কর্মীদের সঙ্গে  পুলিশের খণ্ডযুদ্ধ হয়। হেস্টিংসে খণ্ডযুদ্ধ হয়েছে বলে জানা যায়। সেখানে পুলিশ মিছিল আটকালে রাস্তায় বসে পড়েন লকেট চট্টোপাধ্যায়, ভারতী ঘোষ সহ বেশ কিছু নেতা-নেত্রী। এদিন বিজেপির কেন্দ্রীয় নেতা কৈলাস বিজয়বর্গীয় বলেছেন মিছিল শান্তিপূর্ণ ছিল। বিজেপি আগেই জানিয়েছিল তারা শান্তিপূর্ণ আন্দোলন করবেন। পুলিশ ইচ্ছাকৃতভাবে বিনা প্ররোচনায় মিছিল আটকানোর ফলে গোটা কলকাতা রণক্ষেত্রে চেহারা নেয়। তিনি আরো অভিযোগ করে বলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জির নির্দেশে পুলিশ এই শান্তিপূর্ণ আন্দোলনকে লাঠি চালিয়ে ভাঙার চেষ্টা করেছে বলেই মিছিল উত্তপ্ত হয়েছে। অন্যদিকে রাজ্য সরকার দাবি করেছে পুলিশ যথেষ্ট সমযমের পরিচয় দিয়েছে।