কোচবিহারে করোনা পরিস্থিতি নিয়ে বিশেষ বৈঠক স্বাস্থ্য দপ্তরের

রবীন্দ্রনাথ বর্মন, কোচবিহার, ২৫ এপ্রিল : কোচবিহারের করোনা পরিস্থিতি খতিয়ে দেখতে এলেন উত্তরবঙ্গের স্পেশাল অফিসার ড: সুশান্ত রায়। কোচবিহারে এসেই জেলা শাসকের দপ্তরে বৈঠক করতে যান তিনি। শনিবারের এই বৈঠকে উত্তরবঙ্গের স্পেশাল অফিসারের সঙ্গে ছিলেন উত্তরবঙ্গ উন্নয়ন মন্ত্রী রবীন্দ্রনাথ ঘোষ, অনগ্রসর শ্রেণী কল্যাণ মন্ত্রী বিনয় কৃষ্ণ বর্মন। এছাড়াও উপস্থিত ছিলেন রোগী কল্যাণ সমিতির চেয়ারম্যান পার্থ প্রতিম রায়, জেলা শাসক পবন কাদিয়ান, জেলা পুলিশ সুপার ডক্টর সন্তোষ নিম্বালকর, কোচবিহার মেডিকেল কলেজের প্রিন্সিপাল সুকুমার বসাক ও এমএসভিপি রাজীব প্রসাদ সহ অন্যান্য আধিকারিকরা।


বৈঠক শেষে ডক্টর সুশান্ত রায় জানান, এখনো পর্যন্ত কোচবিহার জেলায় করোনা ভাইরাস আক্রান্ত কোনো রোগী নেই। সুতরাং এই দিক দিয়ে কিছুটা সফলতা রয়েছে প্রশাসনের। সচেতনতা এবং সামাজিক আচরণ বিধির ক্ষেত্রে আরো কঠিন পদক্ষেপ নেওয়া প্রয়োজন। একই সাথে বাজার এর ক্ষেত্রে সোশ্যাল ডিসটেন্স মেইনটেইন করা অত্যন্ত আবশ্যক। তিনি বলেন, কোচবিহার জেলায় যে সকল ব্যক্তিরা আপৎকালীন পরিষেবা দিচ্ছেন যেমন পুলিশকর্মী, স্বাস্থ্যকর্মী, পৌরসভা গুলির সাফাই কর্মী, এবং সাংবাদিক তাদের স্বাস্থ্য পরীক্ষার ব্যবস্থা করা হবে। অবিলম্বে এই কাজ করা হবে বলেও জানান তিনি। তিনি আরও বলেন, সম্ভাব্য করোনা অনুস্বর্গ বহনকারী রোগীদের দ্রুত পরীক্ষার ব্যবস্থা করতে হবে। আপাতদৃষ্টিতে কোচবিহার জেলার অবস্থা ভালো রয়েছে, সচেতনতা এবং লকডাউন সফল হলে কোচবিহার জেলা অবশ্যই সুরক্ষিত থাকবে।


কেন্দ্রীয় সরকারের পাঠানো পরীক্ষার সামগ্রী অর্থাৎ কিট নিয়ে অসন্তোষ প্রকাশ করেন উত্তরবঙ্গ উন্নয়ন মন্ত্রী রবীন্দ্রনাথ ঘোষ। তিনি বলেন কেন্দ্রীয় প্রতিনিধিদল যত্রতত্র ঘোরাঘুরি না করে জেলার আধিকারিকদের করোনা মোকাবেলায় কাজ করতে দিন। এটা রাজনীতি করার সময় নয়, মানুষের সাথে মানুষের পাশে থেকে মহামারী প্রতিরোধের সময়। তাই তিনি আর্জি জানিয়েছেন কেন্দ্রীয় প্রতিনিধি দল ফেরত চলে যাক, এবং রাজ্যে যারা কাজ করছে তাদেরকে কাজ করতে সহযোগিতা করা হোক। তিনি আরও বলেন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দোপাধ্যায় ব্যতীত গোটা ভারতবর্ষে কোন মুখ্যমন্ত্রী কে রাস্তায় দেখা যাচ্ছে না, তাই রাজনীতি বন্ধ করে মানুষের পাশে থেকে কাজ করুন।