পুলওয়ামার মু-তোড় জবাব ২য় সার্জিক্যাল স্ট্রাইকে, নিকেশ ৩০০ পাক জঙ্গি!

তথাগত চট্টোপাধ্যায়

পুলওয়ামা কান্ডের পর এতদিনে কড়া জবাব দিল ভারত। সারা দেশের ঘুম ভাঙার আগেই পাক অধিকৃত কাশ্মীরের কয়েকটি জঙ্গি ডেরা ধূলিসাৎ করে দিল ভারতীয় বিমান সেনা।

চলতি মাসের ১৪ই ফেব্রুয়ারি কাশ্মীরের পুলওয়ামায় জম্মু-শ্রীনগর হাইওয়েতে পাকিস্তান মদত পুষ্ট জঙ্গি গোষ্ঠী জয়েশ-ই-মহম্মদ ভারতীয় সেনা কনভয়ের ওপর এক ভয়ংকর জঙ্গি নাশকতা চালায়। জয়েশ জঙ্গি আদিল আহমেদ দারের নেতৃত্বে আত্মঘাতী গাড়ি বোমা বিস্ফোরণে শহিদ হয়েছিলেন প্রায় ৪৪ জন সিআরপিএফ সেনা জওয়ান।

ভয়াবহ জঙ্গি নাশকতার পর সারা দেশ উত্তাল হয়ে উঠেছিল। সেলিব্রিটি মহল থেকে ক্রিকেটার সবাই এককাট্টা হয়ে পাকিস্তান কে “বয়কটের” ডাক দেন। কাশ্মীর থেকে কন্যাকুমারিকা বদলার আগুনে ফুঁসতে থাকে। সোশ্যাল মিডিয়াতে এক প্রকার যুদ্ধ শুরু হয়ে যায়। প্রতিবেশি দেশের বিরুদ্ধে “পাল্টা” হামলার পোস্ট দিয়ে ক্ষোভ উগরে দিতে থাকেন একের পর এক নাগরিক।

বস্তুত জঙ্গি হামলার পর দিল্লী সরকারের পক্ষ থেকে পাকিস্তান কে কোণঠাসা করার কথা ভাবা হচ্ছিল। এ দিন এক চরম “প্রতিশোধ” নেওয়া হল জঙ্গি হামলার। কিন্তু ঠিক কি ভাবে? আসুন জেনে নেওয়া যাক।

সংবাদ সংস্থা এএনআই সূত্রে জানা যায়, সারা ভারতবাসী যখন গভীর ঘুমে মগ্ন তখন ভোর সাড়ে তিনটে নাগাদ ১২টি মিরাজ ২০০০ যুদ্ধ বিমান নিয়ে দেশের নিয়ন্ত্রণ রেখার ওপারে চলে যায় ভারতীয় বায়ু সেনা। এরপর শুরু হয় পুলওয়ামা ঘটনার মু-তোড় জবাব। পাক অধিকৃত কাশ্মীরের বালাকোট, চাকোটি ও মুজফররাবাদের জঙ্গি ঘাঁটি জয়েশ-ই-মহম্মদ এর কন্ট্রোল রুম ও জয়েশের মূল ঘাঁটি “আলফা ৩” সহ অন্যান্য পাক জঙ্গি ঘাঁটির ওপর যুদ্ধ বিমানের ১০০০ কেজির বিস্ফোরক আছড়ে পড়ে। এক ডজন বিমানের ঝটিতি সার্জিক্যাল স্ট্রাইকে মুহুর্তেই গুঁড়িয়ে ছিন্নভিন্ন হয়ে যায় জয়েশ ঘাঁটি গুলি।

এএনআই সূত্রের খবর অনুযায়ী বিস্ফোরনের অভিঘাতে প্রায় ২০০ থেকে ৩০০ জঙ্গির মৃত্যু হয়েছে। অপারেশন চালাতে সময় লাগে প্রায় এক ঘন্টা।

গোপন অভিযান চালিয়ে নিবির্ঘ্নেই ফিরে আসে ১২টি মিরাজ যুদ্ধ বিমানই। যদিও এই ঘটনার প্রেক্ষিতে সরকারি বিবৃতি পাওয়া যায় নি। তবে বিরোধী নেতা মন্ত্রীরা বায়ু সেনা কে সাহসিকতার জন্য অভিবাদন জানিয়েছেন। টুই্যটে অভিনন্দন জানিয়েছেন দিল্লীর মুখ্যমন্ত্রী অরবিন্দ কেজরিওয়াল। পাশাপাশি অভিনন্দন জানিয়েছেন কংগ্রেস নেতা রাহুল গান্ধী ও তৃণমূল কংগ্রেস নেত্রী তথা মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

সংবাদ সৌজন্যে- দ্য পিডি নিউজ