লোকসভা ভোটের বৈতরণী পার করতেই কি বুলেট ট্রেন শিলান্যাস ও সর্দার সরোবর বাঁধ নির্মাণের পর এবার স্ট্যাচু অব ইউনিটি ?

 

কল্যাণ অধিকারী

ভারতবর্ষের সংস্কৃতির উচ্চতার শিখরে নব পালক যুক্ত করলেন দেশের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। শৌর্য ও উজ্জ্বলতা, নান্দনিকতা সঙ্গে দৃশ্য কল্পতায় ভারতের ইতিহাস কে আবারও শ্রেষ্ঠতায় বসালেন। সৌজন্যে সর্দার বল্লভ ভাই প্যাটেলের বিদ্যত মূর্তি।

সময় টা ইদানিং বিলম্বের পরিচয় রাখছে। প্রতিটি দিন শেষ হচ্ছে একাধিক বিতর্ক রেখে। পেট্রল-ডিজেল-রান্নার গ্যাসের মূল্যবৃদ্ধি প্রধানমন্ত্রীকে উদ্দেশ্য করে আক্রমণের পরিধি ক্রমাগত বাড়াচ্ছে বিরোধী শিবির। ভারতের ইতিহাসে সর্বোচ্চ চুক্তি রাফেল নিয়েও সাঁড়াশি আক্রমণের মুখে পড়তে হচ্ছে প্রতিনিয়ত। মুম্বাই থেকে আহমেদাবাদ বুলেট ট্রেন চালানো নিয়ে কৃষক আন্দোলন জমাট বাঁধছে। তবুও লক্ষ্যে পৌঁছাতে তিনি অবিচল। ৫৬ ইঞ্চি বুকের ছাতি বিছিয়ে বিরোধীদের সমস্ত যুক্তি কে পরাস্তপরতার প্রচেষ্টা করে চলেছেন।

কয়েক ঘন্টা আগে উচ্চতার সার্বিক লক্ষ্য ছুঁয়েছে মেক ইন ইন্ডিয়ার বুলি আওড়ে চলা দেশের প্রধানমন্ত্রী। সর্দার বল্লভ ভাই প্যাটেল কে সামনে রেখে লোকসভা নির্বাচনের আগে শিখরে চড়তে চাইলেন। প্রায় তিন হাজার কোটি টাকা খরচ করে
লৌহ মানব-এর মূর্তি স্থাপন করলেন। জাঁকজমক উদ্বোধন করে দেশকে চমকে দিয়েছেন। হয়তোবা এমনটি সম্মানিত হবেন লৌহ মানব ভাবেননি! এর আগে গুজরাতের নর্মদা নদী সাক্ষী ছিলো আর এক রেকর্ডের ফলকে। সর্দার সরোবর বাঁধ যা পৃথিবীর দ্বিতীয় বৃহত্তম নদী বাঁধ বলে উদ্বোধনের পর খ্যাত হয়েছে। এবার নর্মদা নদীর পারে একতার প্রতীক হয়ে দণ্ডায়মান হলেন লৌহ মানব সর্দার বল্লভ ভাই প্যাটেল।

নর্মদা নদীর তীরে কেড়ওয়াড়ি এলাকায় উন্নয়নের ছোঁয়া কতটা পৌঁছাতে পেরেছে তা প্রশ্নাতীত। ২০১৪ সালে মূর্তি শুরু হওয়া কাজে বারেবারে ধেয়ে এসেছে বিতর্ক। কখনও বে লাগাম খরচ তো কোন সময় ওই এলাকার মানুষ দের অনুন্নয়নের খোঁচা। বাজারে নিয়ম করে কমছে টাকার দাম, মন্দার হাতছানি। এই সময় প্রায় তিন হাজার কোটি টাকা খরচ করা কতটা যুক্তিযুক্ত। বিরোধী দের আরও প্রশ্ন বর্তমান সময়ে ভারতের সঙ্গে বিরূপ মতানৈক্য রাখা চিনকে ওই কাজে যুক্ত করা কি সঙ্গত? লাগাতার পাকিস্তান-এর মতো দেশের শুভাকাঙ্ক্ষী হয়ে চলা চীন ব্যতীত এ কাজ কি কোনভাবে সম্ভবপর ছিল না?

লৌহ মানবের সুবিশাল মূর্তি উচ্চতায় ১৮২ মিটার। যা বিশ্ব ব্রম্ভান্ডে উচ্চতম মূর্তি’র খেতাব ছিনিয়ে নিয়েছে। নামটাও রাখা হয়েছে সহিষ্ণুতার মোড়কে ‘স্ট্যাচু অব ইউনিটি’। কেন্দ্রের একাধিক নেতা বলতে শুরু করে দিয়েছেন সর্দার বল্লভভাই প্যাটেল সর্বোচ্চ সম্মান মিললো। ৬০ তলা বাড়ির সমান গগনচুম্বী মূর্তি বানাতে হাজার-হাজার মেট্রিক টন স্টিল, সিমেন্ট, স্টিল রড এবং ব্রোঞ্জ ক্ল্যাডিং দরকার হয়েছে। তবে ‘স্ট্যাচু অব ইউনিটি’ উন্মোচিত হওয়ার মুহূর্তে ওই এলাকার আদিবাসী সমাজ বয়কট করে প্রতিবাদের প্রথম পর্ব রচনা করে দিয়েছে। আরও একটা বিষয় জানা যাচ্ছে এই ইমারতি মূর্তি দেখতে পকেট থেকে বের করতে হবে ১২০ টাকা ও ৩৫০ টাকা এন্ট্রি ফি।

বছর ঘুরলেই লোকসভা ভোট। পাঁচ বছরের জন্য ক্ষমতা প্রতিষ্ঠিত হওয়া। তারজন্য উন্নয়নের গুজরাট কে সামনে রাখা হবে। একাধারে ‘বুলেট ট্রেন’-এর শিলান্যাস, ও ‘সর্দার সরোবর বাঁধ’ এবং ‘স্ট্যাচু অব ইউনিটি’ উদ্বোধন। এই ত্রয়ী’র বিরুদ্ধে মমতা, মায়াবতী, রাহুল, অখিলেশ, লালু জোটের মহা লড়াই একপ্রকার নিশ্চিত। সরকারের জনবিচ্ছিন্ন নীতি অন্যদিকে উচ্চতায় মোড়া মেক ইন ইন্ডিয়া। রাফাল আনতে অনিল এন্ড কোং বদান্নতা অপরদিকে আঁটোসাটো জিএসটি, নেতিবাচক নোটবন্দী ও রিজার্ভ ব্যাঙ্কের গভর্নরের ইস্তফা সব মিলিয়ে একের বিরুদ্ধে দশের সুউচ্চ কন্ঠ।