মুখে রক্ত চোখে তেজ …… “মানসিক ও শারীরিক পীড়ন সহ্য করে ফিরে আসুক ভারতীয় পাইলট ”

-কল্যাণ অধিকারী ; হাওড়াঃ-

শত্রু দেশে আমাদের এক পাইলট আটকা পড়েছে। তাঁর প্রতি আমাদের সকলের শুভ কামনা থাকবে। কিন্তু ওই দেশ জানাচ্ছে তাঁকে অসুস্থ অবস্থায় নিয়ে যাওয়া হয়েছে হাসপাতালে। এখানেই প্রশ্ন এমন একটি দেশ যারা সীমান্ত থেকে
লাগাতার গুলি ছোঁড়ে। তারা কি সত্যি মানবিক হয়ে আহত পাইলটকে হাসপাতালে নিয়ে গেছে!

ভাবতেও অবাক লাগে যদি এমনটা ওরা করতো তাহলে কি জঙ্গিদের পীঠস্থান কোন কালে হতো পাকিস্তান । ওদের শুভ বুদ্ধি না কোন দিন ছিল না হবে । ওদের অন্তরে যা বাইরেও তা , একটাই লক্ষ্য ভারতকে টেক্কা দেওয়া । ভোট আসলে অধিকৃত কাশ্মীরকে ইস্যু করা । আর জেতার পরে কিছু না করতে পারলে ভারতে হামলা করে নিজেদের কাপুরুষতার পরিচয় দেওয়া।

দুই দেশের লড়াই হলে আটকে পড়া সেনা জওয়ানদের সশরীরে ফিরিয়ে দেওয়াটাই যুদ্ধের নীতি । কিন্তু এক্ষেত্রে কি অশান্তের দেশ সুস্থ ভাবে ফিরিয়ে দেবে পাইলটকে ? অভিজ্ঞতা বলছে ভারতীয় নৌবাহিনীর প্রাক্তন অফিসার কুলভূষণকে চোর সন্দেহে গ্রেফতার হওয়ার পর ফাঁসির সাজা শুনিয়েছে । এখনও চলছে আন্তর্জাতিক আদালতে মামলার শুনানি।

ওরা সিন্ধু নদের এক বুক জলে দাঁড়িয়ে বললেও বিশ্বাস নেই। ওদের কর্ম বিশ্বের দুয়ারে ঘৃণার সৃষ্টি করেছে। এদিন যে ছবি প্রকাশিত হয়েছে তাতে দেখা যাচ্ছে মুখ ফেটে ঝড়ছে রক্ত। তাকে ঘিরে নিয়ে যায় পাক ফোর্স। আটক ভারতীয় পাইলটের কঠিন সময়ে আমরা সবাই ওর সুস্থতা কামনা করি ।

ওঁ বুদ্ধিদীপ্ত এবং শক্তিশালী মানসিক দৃঢ়তার সঙ্গে দীর্ঘ পীড়ন সহ্য করে ফিরে আসবে আমাদের ঘরের ছেলে নিজের দেশ ভারতবর্ষে ।