নাগরিকত্ব আইনে বদল ট্রাম্পের

হেমাশ্রী বিশ্বাস, কলকাতা
সাংবিধানিক সংশোধন ছাড়াই শুধু মাত্র প্রশাসনিক নির্দেশনামা জারি করে নাগরিকত্ব আইন বদল করা যাবে বলে আশা করছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প।
আমেরিকায় জন্মালে নাগরিকত্বের স্বাভাবিক সাংবিধানিক অধিকার অনুপ্রবেশকারী, বেআইনি অভিবাসী ও অ-নাগরিকদের সন্তানের ক্ষেত্রে ও প্রযোজ্য হয়ে এসেছে এতদিন। আমেরিকায় জন্মানো শিশু মানেই মার্কিন নাগরিকত্বের অধিকারী। এই ব‍্যবস্থাটাই তুলে দিতে চান ট্রাম্প। এক টেলিভিশন সাক্ষাৎকারে তিনি বলেন, ” আমাকে সব সময় বলা হয়েছে, এটা করতে গেলে নাকি সংবিধানে সংশোধনী আনতে হবে। একেবারেই আনতে হবেনা।” ট্রাম্পের দাবী, হোয়াইট হাউসের আইনজীবীরা বিষয়টি তলিয়ে দেখছেন। ট্রাম্পের বক্তব্য, “প্রক্রিয়া শুরু হয়ে গিয়েছে। প্রশাসনিক নির্দেশিকা জারি করেই ব‍্যাপারটি ঘটিয়ে ফেলা সম্ভব।” আর এক সপ্তাহ পর আমেরিকার মধ‍্যবর্তী নির্বাচন হতে চলেছে। তার আগে অভিবাসনকে হাতিয়ার বানিয়ে এভাবেই সুর চড়াচ্ছেন ট্রাম্প। রিপাবলিকান শিবিরের বক্তব্য, তাতে ভোটাভুটি তে মুনাফা হতে পারে। ট্রাম্প এও বলেন ” পৃথিবীতে একমাত্র আমাদের দেশেই এরকম অদ্ভুত একটি নিয়ম আছে। এটার নিষ্পত্তি দরকার।” বিরোধীদের এ বিষয়ে সরব হতে দেখা যায়, তাদের বক্তব্য জন্মগত নাগরিকত্বের অধিকার এভাবে প্রেসিডেন্টের ইচ্ছায় নাকচ করা যায়না। এটা সাংবিধানিক অধিকার। সংবিধান পরিবর্তন করতে চাইলে হাউস অব রিপ্রেজেন্টেটিভস এবং সেনেটে দুই-তৃতীয়াংশ সমর্থন প্রয়োজন। মার্কিন স্টেটগুলির তিন-চতুর্থাংশ সমর্থন ও প্রয়োজনীয়।