ছত্রিশগড়ের পাঁচদিনে মেঘাচ্ছন্ন আকাশে সূর্যোদয় বাঘেলের!

অর্পিতা বসু,কলকাতা:ছত্রিশগড়ে অবশেষে পাঁচদিন পর মেঘলা আকাশের অবসান হয়ে সূর্যোদয় হল।ভোটের ফলপ্রকাশের পরও দলের নেতাদের মধ্যে ভোট হচ্ছিল রাজ্যের মূখ্যমন্ত্রী কে হবে?দীর্ঘ জল্পনার পর আজ কংগ্রেস হাইকমান্ড সিদ্ধান্ত নিল মূখ্যমন্ত্রীর গদিতে বসছে ভূপেস বাঘিল।

গত পাঁচদিন ধরে দিল্লীর কংগ্রেস কার্যালয় সহ গোটা রাজ্যের প্রশ্ন ছিল একটাই।ছত্রিশগড়ের মূখ্যমন্ত্রীর পদটি কে নেবে।গত শনিবার দিল্লীর রাহুলের বাসভবনে দীর্ঘ বৈঠক করার পরও সিদ্ধান্ত নিতে পারেননি কে এই পদটির জন্য সঠিক।রাহুল গান্ধী বেশ দ্বন্দ্বের মধ্যে ভুগছিলেন।এই পদে কাকে রাখা হবে আর হবেনা এই নিয়ে টক্কর লড়াই চলছিল টি এস সিং দেও,তামরাদ্বাজ সাহু, ও বাঘেলের সাথে।

এই চার নেতার সাথে দিল্লির বাসভবনে রাহুল স্বয়ং বৈঠক করেছেন।এই বৈঠকে মা সোনিয়া গান্ধী ও বোন প্রিয়াঙ্কা গান্ধী ও উপস্থিত ছিলেন।দীর্ঘ বৈঠকের পর রাহুল গান্ধী টুইটারে পোস্ট করে বলেন যে রাজ্যের মূখ্যমন্ত্রী বাছাই এর কাজ শেষ।

আজ রায়পুর বৈঠকের শেষে মূখ্যমন্ত্রীর নাম ঘোষণা হল।ছত্রীশগড়ে মূখ্যমন্ত্রীর পদে নিযুক্ত হচ্ছেন প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি ভূপেশ বাঘেল।আগামীকাল শপথ নিচ্ছেন তিন রাজ্যের মূখ্যমন্ত্রী।প্রথমে শপথ গ্রহণ করবে রাজস্থান,তারপর মধ্যপ্রদেশ,এবং সর্বশেষে ছত্রিশগড় এর বাঘেল।

মধ্যপ্রদেশ ও রাজ্যস্থানে মুখ্যমন্ত্রী নির্বাচনে ধোঁয়াশা দেখা দিলেও তা মিটে গিয়েছিল।ছত্রিশগড়ের ক্ষেত্রে সমস্যা ছিল বেশ জোড়দার।।যুদ্ধের শেষ হাসিটা হাসল ভাপেল।যুদ্ধ জয়ের শেষে জিতলেন নিজের নামের শিলমোহর।