কাশ্মীর সংঘর্ষ :নিহত ১৮।

অর্পিতা বসুঃ- বেশ কয়েকদিন ধরে ভারতীয় সেনাবাহিনীর ওপর হামলা চালাচ্ছিল পাক জঙ্গি।তারই পালটা জবাব দিল ভারতীয় সেনারা রবিবার রাতে।ভারতীয় সেনাদল কাশ্মীর সিমান্তে ৩টি সংঘর্ষ চালায়।১৩ জন জঙ্গি নিহত হয়েছে।প্রাণ হারিয়েছে হেতরাম,নীলেশ সিংহ,অরবিন্দ কুমার নামে তিন বীর সেনা।এর পাশাপাশি আরো ২জন স্থানীয় বাসিন্দা মারা যান।
কাশ্মীর শোপিয়ানের অন্তভুক্ত দ্রাগড়,কাছদুরা,অনন্তনাগের দিয়েলগ্রামে অভিযান চালায় ভারতীয় সেনারা।১ম সংঘর্ষ হয় দ্রাগড় গ্রামে এক পুলিশ অফিসারের বাড়িতে।সেখানে হিজবুল মুজাহিদিন কম্যান্ডার জুবের তুরে ও তার সহজযোগিরা।শেষ অব্দি সাত জন জঙ্গি নিহত হয় ও ১৪জন স্থানিয় বাসিন্দাদের উদ্ধার করেন সেনারা।কাছদুরাতে জঙ্গিরা লুকিয়ে রয়েছে এক কনস্টেবলের বাড়িতে। পুলিশরা এই খবর জানায় সেনাদের।সেখানে পাঁচ জন জঙ্গির পাশাপাশি ৩জন সেনা মারা যায়।দিয়াল গ্রামে অবশ্য লস্কর জঙ্গির পরিবারের সহায়তায় আত্মসমর্পণ করে।সেনারা জানিয়েছে রইস ঠেকার নামে এক কম্যান্ডার সামিল ছিল।যখন সংঘর্ষ চলছিল তখন স্থানীয়ে একাংশ পাথর দিয়ে আঘাত করছিলেন সেনাবাহিনিদের।প্রায় ৭০জন বাসিন্দা আহত হয়েছে বলে আশংকা করছে পুলিশরা।সংঘর্ষ এর সময় শ্রীনগর – বানিহাল রেল পরিষেবা বন্ধ ছিল তার সাথে শহরে মোবাইল ইন্টারনেট পরিষেবা বন্ধ রাখা হয়েছিল।
সেনারা জানিয়েছে এর আগে কোনোদিন কাশ্মীরে এত বড় জঙ্গি দমন অভিযান চলেনি।এই অভিজানের তীব্র নিন্দা করেন পাকিস্তান।পাক বিদেশ মন্ত্রক কড়া সমালোচনা করে বলেছেন ভারত বাহিনির হাতে ১১জন কাশ্মীরির মৃত্যু হয়েছে।পাকিস্তান ও ভারতীয়দের সাম্প্রতিক অশান্তি প্রায়শই হয়।তারই ফল এই সংঘর্ষ।
এই সংঘর্ষের জের দুটি দেশে কতটা প্রভাব ফেলবে তা ভবিষ্যৎ এ বোঝা যাবে।