অান্ডার ট্রায়াল।

তাজমুল ক‌রিম, হাওড়াঃ- গতকাল কা‌দের খা‌নের এক‌টি সি‌নেমা দেখলাম। সি‌নেমার নাম অান্ডার ট্রায়াল। কা‌দের খান সেখা‌নে একজন নামকরা অাইনজী‌বি। সি‌নেমার ফ্যাক্ট হল এক ব্যক্তির উপর নি‌জের তিন‌টি কন্যার উপর রেপ কে‌সের চার্জ দেওয়া হ‌য়ে‌ছে। ব্য‌ক্তি‌টির স্ত্রী কম‌প্লেইন ক‌রে‌ছেন যে ব্য‌ক্তি‌টি না‌কি তারই ঔরসজাত ‌তিন‌টি মে‌য়েকে নিয়‌মিত ধর্ষন ক‌রে। এখন এই ইস্যুতেই ব্যক্ত‌ি‌টি‌কে অান্ডার ট্রায়া‌লে নেওয়া। কারাগা‌রে অারও যেসব ক‌য়েদী ছিল অ‌নে‌কেই ব্য‌ক্তি‌টি‌কে মার‌ধোর শুরু ক‌রে কারন ব্য‌ক্তি‌টির উপর নিজ কন্যাদের ধর্ষন করার চার্জ ছিল। সক‌লেই ব্যক্ত‌ি‌টি‌কে ঘৃনার চো‌খে দেখ‌তো। কিন্তু ক‌য়েদী‌দের ম‌ধ্যে এক‌টি লোক লোক‌টি‌কে ঘৃনা কর‌তো না। কেউ ঐ ব্যক্ত‌ি‌টি‌কে মার‌তে এলে লোক‌টি বল‌তো অা‌রে সে বিচারাধীন। সেও অামা‌দের মত একজন। তার অপরাধ প্রমান তো হয়‌নি। যাই শেষ‌মেষ কা‌দের খান যথাযথ ভা‌বে প্রমান ক‌রেন যে অাস‌লে ব্যক্ত‌ি‌টির স্ত্রী চ‌রিত্র হীন এবং মে‌য়ে‌দের দি‌য়ে দেহব্যবসা কর‌ি‌য়ে ফ্ল্যাট গহনা ইত্যা‌দি ক‌রে‌ছিল। অব‌শে‌ষে ব্য‌ক্তি‌টি বেকসুর খালাস পায়। এবং তার স্ত্রীকে জে‌লে পাঠা‌নো হয়। ব্য‌ক্তি‌টি যখন ছাড়া পে‌য়ে‌ছি‌ল পু‌লিশ অ‌ফিসার‌কে অনু‌রোধ ক‌রে‌ছিল তা‌কে যেন পেছ‌নের গেট দি‌য়ে বার করা হয়। কারন হিসা‌বে ব্য‌ক্তি‌টি ব‌লে‌ছি‌লেন যে সাম‌নের গে‌টে মি‌ডিয়ার লোক থাক‌বে। অার মি‌ডিয়ার সাম‌নে তার যাওয়ার শক্ত‌ি সে হা‌রি‌য়ে ফে‌লে‌ছে। কিন্তু পু‌লিশ অ‌ফিসার‌টি তা‌কে সাম‌নের গেট দি‌য়েই নি‌য়ে যান। তা‌কে দেখান যে সেখা‌নে কোন মি‌ডিয়ার লোক নেই। এবং অ‌ফিসার টি ব্যক্তি‌টি‌কে বল‌লেন যে কেউ নি‌র্দোষ প্রমা‌নিত হ‌লে কোন মি‌ডিয়া অাস‌বেনা। কারণ মি‌ডিয়ার কাজই হল দোষ দেখা‌নো।

যাই‌হোক অা‌মি এটা বললাম এই কার‌নে যে অামা‌দের উচিত অপরাধ‌কে ঘৃনা করা অপরাধী‌কে নয়। ধনঞ্জ‌য়ের ফাঁসি হ‌য়ে‌ছে। অার এই ফাঁসি‌তে মিডিয়ার ভূ‌মিকা বিরাট। এখন কি লাভ এই কথা ব‌লে যে ধনঞ্জ‌য়ের বিপক্ষ‌ে যারা সাক্ষী দি‌য়ে‌ছিল তা‌দের কারও সা‌থে কারও বয়া‌নের কোন মিল ছিল না। পোষ্ট ম‌র্টেমের পর হেতাল পা‌রে‌খের খাদ্যনালী‌তে জ‌মে থাকা খাবার দি‌য়ে মৃত্যু সময়টা জানা যেত। কিন্তু কেন জানা হয়‌নি সে প্রশ্ন অাজ অবান্তর। কারণ মৃত্যুসময় মার্ডার কে‌সের মূল বিষয় বলা যে‌তে পা‌রে। এটার উপর ভি‌ত্তি ক‌রে অ‌নেক সময়ই কেসটা ঘু‌রে যে‌তে পা‌রে। ধনঞ্জ‌য়ের উপর রেপ কে‌সেরও চার্জ ছিল। কিন্তু অাশ্চর্য জনক ভা‌বে হেতাল পা‌রে‌খের পিউ‌বিক হেয়া‌রে কোন বীর্য পাওয়া যায়‌নি এবং দে‌হের নিম্নভা‌গে কোন ক্ষত‌চিহ্ন পাওয়া যায়‌নি। রেপ‌কে‌সে যা প্রায় অসম্ভব। কিন্তু এ প্রশ্নের অাজ কোন দাম নেই। কারণ অামরা মি‌ডিয়ার মাধ্য‌মে হেতাল পা‌রে‌খের জন্য যতটা সম‌বেদনা জ্ঞাপন কর‌তে শি‌খে‌ছি তার একভাগও ধনঞ্জ‌য়ের সদ্য বিবা‌হিতা স্ত্রীর বছ‌রে‌র পর বছর ম‌রার মত বেঁচে থাকার জন্য সিমপ্যা‌থি দেখা‌তে পা‌রি‌নি। ধনঞ্জ‌য়ের ফাঁ‌সির বি‌রো‌ধিতা অ‌নে‌কে কর‌লেও মি‌ডিয়ার বদৌল‌তে ‌কিন্তু প্রায় সক‌লেই মে‌নে নি‌য়ে‌ছিল ধনঞ্জয় অপরাধী। কিন্তু দিন যত গড়া‌চ্ছে ধনঞ্জয়‌কে নি‌র্দোষ ভাবার লোক বেড়‌ে চ‌লে‌ছে। কিন্তু তাতে কি লাভ! ধনঞ্জ‌য়ের সোনালী জীবন তো অামরা অার ফি‌রি‌য়ে দি‌তে পার‌বো না।

অাজ অাবারও এক‌টি জঘন্যতম অপরা‌ধের খবর নি‌য়ে মি‌ডিয়া উত্তাল। ৪ বছ‌রের এক‌টি শিশু কে যৌন নির্যাতন ক‌রেন বিরলা স্কু‌লের দুই শিক্ষক। যে অপরাধ ঘ‌টে‌ছে স‌ত্যিই এটা জঘন্য এবং অমান‌বিক। অপরাধ প্রমান হ‌লে দোষী‌দের য‌দি ফাঁসিও হয় তা‌তে কারও কোন অাপত্তি থাকার কথা নয়। কিন্তু অামরা যারা প্রত্যক্ষদর্শী না হ‌য়েও শুধু মাত্র মি‌ডিয়ার দ্বারা প্রভাবিত হ‌য়ে বু‌দ্ধিজী‌বিপনা দে‌খি‌য়ে অপরাধী‌দের চোদ্দগু‌ষ্টির উদ্ধার ক‌রে চ‌লে‌ছি, এমন কি অপরাধী হিসা‌বে চি‌হ্নিত ব্য‌ক্তির স্ত্রীর ছ‌বি পোষ্ট ক‌রে যে নোংরা‌মো ক‌রে চ‌লে‌ছি, এখন কোন ভা‌বে অপরাধী হিসা‌বে চি‌হ্নিত ব্যক্তিগু‌লি য‌দি নিরপরাধ প্রমান হয় তাহ‌লে কি অামরা পার‌বো নি‌জেদের দেখা‌নো বু‌দ্ধিজী‌বিপনার জন্য ক্ষমা চে‌য়ে স্টেটাস দি‌তে? মহাজ্ঞানী হজরত অালী ব‌লে‌ছি‌লেন কারও বিষ‌য়ে কোন কিছু শুন‌লে যাচাই না ক‌রে প্রচার ক‌রোনা। যে অপরাধী সে তো শাস্ত‌ি পা‌বেই। কিন্তু অামরা অপরাধী হিসাবে চি‌হ্নিত ব্য‌ক্তির প্রকৃত বিচার হওয়ার অা‌গেই নিজেরাই বিচার ক‌রে ফেল‌ছি। এবং তাও অাবার প্রমান ছাড়াই। যেটা করার কোন অ‌ধিকার অামা‌দের নেই।শুধুমাত্র মি‌ডিয়া যারা টি,অার‌,পি এর কার‌ণে অপরাধী চেনা‌তেই শেখায়, কখ‌নো নিরপরাধী চেনা‌তে শেখায় না, তা‌দের উপর ভি‌ত্তি ক‌রে অামরা অাবালপনা ক‌রেই চ‌লে‌ছি। অার অান্ডার ট্রায়া‌লে থাকা ব্য‌ক্তিদের স্ত্রীসহ চোদ্দগু‌ষ্টির উদ্ধার ক‌রে চ‌লে‌ছি । যেটা কোন অবস্থা‌তেই উচিত হ‌তে পা‌রে না।