“অন্যধারার বাংলা ছবির মুখ সৌগত বিশ্বাস”

 

শর্ট ফ্লিম দিয়ে হাতে খড়ি এরপর বেশকিছু অন্যধারার ছবি পরিচালনা নিয়ে এক পড়ন্ত বিকেলে পরিচালক সৌগত বিশ্বাসের মুখোমুখি সংবাদ টুডের প্রতিনিধি ।

১.শর্ট ফিল্ম এর হাত ধরে আপনার পথ চলা শুরু একজন পরিচালক হিসাবে এই পথ কতটা মসৃণ ছিল?

উঃ আমরা যখন কাজ শুরু করি তখন শর্ট ফ্লিম বলে কিছু ছিলো না।টেলি ফিল্ম ,দুরদর্শন বা কিছু চ্যানেল আছে যে গুলির জন্য প্রাইভেট চ্যানেল, ওই ধরো ১ঘন্টা সময় একটি করে বানাতে হতো সেটাকে তখন টেলিফ্লিম বলতো।এরপর প্রচুর টেলিফ্লিম করেছি,কয়েকটি মেগা করেছি , তারপর বড় পর্দার ছবি। তবে কোনোদিনই মসৃন ছিল না বা আমার মনে হয় আজকে যারা কাজ করছে, কিছুটা এসেছে আমাদের মধ্যে থেকে কিছুটা দূরে এগোতে পেরেছে , করারই পক্ষে মসৃন ছিল না।

২. আগেকার সাদাকালো সিনেমা ও রঙিন সিনেমার মধ্যে পার্থক্য, আপনি কি মনে করেন ?
উঃ সাদা এবং কালো আর রঙিন এর মধ্যে পার্থক্য শুনে বোঝা যাচ্ছে । এবার ঘটনা হচ্ছে যখন কালার ছবি তৈরি হওয়ার মতো কোনো টেকনিক্যাল পদ্ধতি আসেনি, তখন সাদা এবং কালো ছবি তৈরি হতো,এত খারাপ বা ভালো বলে ব্যাপার নয় । কোনো জিনিস যখন শুরু হয় তখন তার একটা , মানে জন্মের সময় তার একটা একরকম একটা ভূমিকা থাকে , তারপর আস্তে আস্তে সে বড় হয় তার বিভিন্ন রকম ডালপালা গজায়। ঠিক প্রথমে যখন সিনেমা তৈরি হয়ে ছিল।তখন ব্ল্যাক এন্ড হোয়াইট, তারপর আস্তে আস্তে সব কিছু টেকনিক্যাল উন্নত হয়েছে, সেগুলো কালারে আনা হয়েছে । তবে দুটির কোনো তুলনা করার জায়গা হয় না ।

৩. এখন চলচ্চিত্র বাজার যে কমছে এ বিষয়ে আপনি কি বলবেন ?
উঃ আমার তো মনে হয় কোনো ভাবে চলচ্চিত্রের বাজার কমেনি, চলচ্চিত্রের বাজার যেরকম ছিল , বরং তা আরো ভালো হচ্ছে । এখন ব্যাপার হচ্ছে যে জিনিসটি তুমি সহজে পেয়ে যাচ্ছ সেটি তুমি কষ্ট করে পেতে যাবে কেন ? জানে যে আজকে একটা শুক্রবার সিনেমা রিলিজ হলো; হয়তো মাস খানেক বা পনেরো দিনের মধ্যে একটা ওয়ার্ল্ড টিভি প্রিমিয়াম হয়ে যাচ্ছে কোনো একটি বড় চ্যানেলে, দুদিন বাদে আমি দেখতে পাবো । ফলে আমি হলে দেখতে যাবো কেন ?

৪.নতুন অভিনেতা /তারকারদের সাথে কাজ করার অভিজ্ঞতা যদি বলেন?
উঃ ব্যাপার হচ্ছে আমি নতুনদের সঙ্গে কাজ করতে বরাবরই ভালোবাসি। কেন না আমার মনে হয় যে যারা আজকে পুরোনো তারা আগে নতুন ছিল।কোনো না কোনো পরিচালকের হাত ধরে তারা নতুন থেকে পুরোনো হয়েছে । তো আমিও সেরকম নতুন ছেলে মেয়ে নিয়ে কাজ করতে বরাবরই আগ্রহী। আমার রিসেন্টলি ছবি রিলিজ করল গত ২৪ তারিখ ,ওটাতে সাতটা নতুন ছেলে মেয়ে অভিনয় করছে , তারা খুব ভালো কাজ করছে । এখনো ছবিটি বিভিন্ন জায়গায় চলছে, আগামী ডিসেম্বরের আগে ছবি রিলিজ আছে ।

৫. পুজো উপলক্ষে আমার দর্শক বন্ধুরা কি পাচ্ছে?
উঃপুজো উপলক্ষে আর কিছু করার নেই কারণ পুজো উপলক্ষে ২৪ তারিখে ”কলকাতা ট্যুর’ পেয়ে গেছে দর্শকদের খুব ভাললেগেছে বিভিন্ন চ্যানেল, বিভিন্ন ইলেক্ট্রনিক মিডিয়া।

৬. পুজো উপলক্ষে আপনার নতুন ছবি কি আসছে?
উঃ আপকামিং মুভি আসছে ডিসেম্বরে ” কে এক নন্দিনী ” এটা একটা ত্রিকোণ প্রেমের গল্প। জানুয়ারিতে আসছে ”কোথা কোথা খুঁজেছি তোমায় ” ওটা পুরো মিউজিক্যাল লাভ স্টোরি তো ডিসেম্বর -জানুয়ারি মিলেই এই দুটি সিনেমা আমার আসছে, আশা করি এটা দর্শকের ভালো লাগবে ।

৭. নতুন সিনিয়র আর্টিস্ট ও জুনিয়র আর্টিস্ট দুটো মনে দুজনার সাথেই বা দুজনকে নিয়ে পথ চলা তো এবিষয়ে আপনি কি বলবেন ?
উঃ সিনিয়ার আর্টিস্টরা তো সিনিয়ার হবেই তাদেরকে নিয়ে তো নতুন কিছু বলার নেই ।

৮. নতুন যারা আসছে তাদের বিষয়ে আপনি কি বলবেন ?
উঃযারা আসছে তারা ঠিকঠাক প্লাটফ্রম পাচ্ছে না , বিভিন্ন জায়গায় মিসগাইড হচ্ছে ।অনেক আশা নিয়ে আমি আজকে এই জায়গায় এসেছি যে একটা সিরিয়াল করবি বা সিনেমা করবো । তবে এখন ছেলে মেয়েদের মধ্যে একটা প্রবণতা এসে গেছে যে কত তাড়াতাড়ি আমাকে চিনবে দর্শক ।সিনেমা ও সিরিয়ালের মধ্যে একটা পার্থক্যথেকে যায় । সেটি হলো সিরিয়াল হচ্ছে এপিসোড মাত্র আজকে আমি একটা ক্যারেক্টার করছি আমাকে দর্শক মনে রাখছে যখন এপিসোডটা শেষ তখন আর কেউ মনে রাখেনা । আর সিনেমাটা হচ্ছে অমর কোনো না কোনো চ্যানেলে দেবে সেটাকে ভুলে যাওয়া যায় না ।

৯. আমার দর্শক বন্ধুদের উদ্দেশ্য কিছু বলবেন ?
উঃ সামনে পুজো , পুজোতে খুব আনন্দ করুন ঠাকুর দেখুন , কিন্তু পাঁচ দিনের একদিন অনন্ত হলে যান। যে ছবিটি আপনার ভালো লাগবে । আর বাংলা ছবি ভালো করে দেখুন ।

বাংলা চলচ্চিত্র জগতের সফল পরিচালক সৌগত বিশ্বাসের সাক্ষাৎ গ্রহণে আমাদের সংবাদ টুডের প্রতিনিধি উজ্জ্বল সরকার ও বেবী চক্রবর্তী